English    ফটো গ্যালারি    ভিডিও গ্যালারি
শিরোনাম :
ভূয়া জন্মদিন পালন করে খালেদা জিয়া বিকৃত মানসিকতার পরিচয় দিচ্ছেন      মীর কাসেম আলীর রিভিউর পরবর্তী শুনানি রোববার      সন্তান নিখোঁজের তথ্য সমাজকেই বের করতে হবে      গত ৭ বছরে সাড়ে ১০ কোটি নতুন কর্মসংস্থান       পরমাণু কৃষি গবেষণা আইনের খসড়া অনুমোদন      নিজামীর রিভিউ শুনানি ৩ মে      ভাড়াটিয়া নিবন্ধনের দায়িত্ব বাড়িওয়ালাদের      
আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস
Published : Wednesday, 9 August, 2017 at 1:29 PM, Count : 1000
আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস ডেস্ক রিপোর্ট : আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস বুধবার (৯ আগস্ট)। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে মিল রেখে বাংলাদেশেও পালিত হবে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস। এই দিনে বিশ্বের অন্য দেশের মতো বাংলাদেশের অধিকারবঞ্চিত আদিবাসীরাও তাদের অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে নামবেন।

আদিবাসী দিবস উপল্েক্ষ বুধবার রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বেশকিছু কর্মসূচি নিয়েছে বাম ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো। বাংলাদেশের আদিবাসীদের মধ্যে বিরাট একটি অংশ দেশের পার্বত্য অঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বাস করে।

১৯৯৪ সালে জাতিসংঘের গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সারা পৃথিবীতে ১৯৯৫ সাল থেকে ৯ আগস্ট আনুষ্ঠানিকভাবে দিবসটি পালন করে আসছে বিশ্বের প্রায় ৩০ কোটি আদিবাসী। ১৯৯২ সালে জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের উন্নয়ন ও সংরক্ষণ উপকমিশনের কর্মকর্তারা তাদের প্রথম সভায় আদিবাসী দিবস পালনের জন্য ৯ আগস্টকে বেছে নেয়। আদিবাসী জনগণের মানবাধিকার, পরিবেশ উন্নয়ন, শিক্ষা ও সংস্কৃতিসম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যা নিরসনের লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সুদৃঢ় করা ও গণসচেতনতা সৃষ্টি করাই বিশ্ব আদিবাসী দশক, বর্ষ ও দিবস পালনের মূল উদ্দেশ্য।

জাতিসংঘের তথ্যমতে, বিশ্বের ৭০টি দেশে ৩০ কোটি আদিবাসী বাস করে, যাদের অধিকাংশই অধিকারবঞ্চিত। অনেক দেশে আদিবাসীরা স্বীকৃতিই পায়নি। কোনো দেশে উপজাতি, কোনো ুদ্র নৃগোষ্ঠী বলে অভিহিত করা হয় তাদের।

১৯৯৩ সালকে জাতিসংঘ প্রথমবার দআদিবাসী বর্ষদ ঘোষণা করে। পরের বছর ১৯৯৪ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্রতিবছর ৯ আগস্টকে দবিশ্ব আদিবাসী দিবসদ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এ ছাড়া জাতিসংঘ ১৯৯৫-২০০৪ এবং ২০০৫-২০১৪ সালকে যথাক্রমে প্রথম ও দ্বিতীয় আদিবাসী দশক ঘোষণা করে।

১৯৯৪ সাল থেকে বিশ্বজুড়ে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস পালন করা শুরু হলেও ২০০১ সালে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম গঠনের পর থেকে বাংলাদেশে বেসরকারিভাবে বৃহৎ পরিসরে দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। মূলত এর পর থেকেই সরকার প্রধান ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এই দিবসে সংহতি প্রকাশ করে আসছেন। এবারও বাণী দিয়েছেন তারা।

দেশের উত্তরাঞ্চলে প্রায় ২০ লাখ আদিবাসী জনগোষ্ঠীর বাস চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নওগাঁ, জয়পুরহাট, রংপুর, দিনাজপুর জেলায়। এ অঞ্চলে প্রায় ৩০টি আদিবাসী জনগোষ্ঠী বাস করে। এদের মধ্য শিং, সাঁওতাল, ওঁরাও, মুন্ডারি, মাহতো, রাজোয়ার, কর্মকার, মাহালী ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। সংখ্যালঘু এই জনগোষ্ঠী নিজস্ব সংস্কৃতি, লোকাচার, ভাষা ও খাদ্যাভ্যাসে স্বতন্ত্র, যার পরিপ্রেেিত তাদের সুনির্দিষ্টভাবে আদিবাসী বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন বলে ধরা হয়।

আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল, রহনপুর, গোমস্তাপুর, আমনুরা, ভোলাহাট এলাকায়; রাজশাহী জেলার তানোর, গোদাগাড়ী, কাকনহাট, মুন্ডমালা, দামকুড়াহাট এলাকায়, নওগাঁ জেলার খান্দা, নিয়ামতপুর ও পাঁচবিবি, পঞ্চগড়ের আটোয়ারি ও রানীগঞ্জ এলাকায়, সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ তাড়াশ, সোনাপাড়া, সেয়া ও জোসাই এলাকায় এবং ঠাকুরগাঁও, রংপুর ও বগুড়াসহ অন্যান্য জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে আদিবাসীরা বহু বছর ধরে টিকে আছে।

পার্বত্য চট্টগ্রামে বড় অংশের আদিবাসীদের বাস। রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবানে বেশ কয়েকটি আদিবাসীগোষ্ঠী রয়েছে। এ ছাড়া চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলায়ও অল্পসংখ্যক আদিবাসীদের দেখা যায়। আদিবাসীদের দাবি, তারা রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এ ছাড়া প্রভাবশালী জাতিগোষ্ঠী (বাঙালি) তাদের ওপর নানা ধরনের নিপীড়ন চালায় বলেও তারা অভিযোগ করে আসছে। এসব বঞ্চনার বিরুদ্ধে তারা সংগ্রাম ঘোষণা করে তা অব্যাহত রেখেছে।

ঃৎরনধষ ২ আদিবাসীদের লড়াইয়ের হাত ধরে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর সরকারের সঙ্গে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির শান্তি চুক্তি হয়। এই চুক্তি অনুযায়ী, আদিবাসীদের সুরা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় সরকার। কিন্তু আদিবাসীরা অভিযোগ করে আসছে, চুক্তির পর সরকার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের সত্যিকার অর্থে কাজ করেনি এবং করছে না। কিন্তু সরকার বলছে, আদিবাসীদের সুরায় যথেষ্ট তৎপরতা রয়েছে।

এদিকে আদিবাসী দিবসে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি নিয়েছে সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো। রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে এ দিনে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পালন করা হবে দিবসটি। পার্বত্য চট্টগ্রামেও হবে নানা অনুষ্ঠান।

উল্লেখ্য, সাংবিধানিকভাবে বাংলাদেশে ‘ুদ্র নৃগোষ্ঠী’ আছে, আদিবাসী নয়। এ নিয়েও সরকার ও ুদ্র নৃগোষ্ঠীর মধ্যে ব্যাপক মতপার্থক্য রয়েছে।






Join With Us
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৪৫/৩, বীর উত্তম সি.আর.দত্ত রোড (ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, সোনারগাঁও রোড), হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫, বাংলাদেশ।
ফোনঃ +৮৮-০২-৯৬৬৬৬৮৫, ৯৬৭৫৮৮৫, ৯৬৬৪৮৮২-৩, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৯৬১১৬০৪, হটলাইন : +৮৮০-১৯২৬৬৬৭০০২-৩
ই-মেইল : pressgonokantho@yahoo.com, gonokanthomofossal@yahoo.com, editorgonokantho@yahoo.com, web : www.gonokantho.com.bd